Sale!

যে জন দিবসে মনের হরষে সারমর্ম

Original price was: 1,500.00৳ .Current price is: 1,150.00৳ .

<h2>সরাসরি কিনতে ফোন করুন:&amp;amp;amp;amp;amp;amp;amp;amp;amp;amp;amp;lt;span style=”color: #0000ff;”&amp;gt; 01622913640&amp;amp;lt;/span>

&gt;&amp;gt; সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !</p>

&amp;gt;> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে 60 ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

<p>&gt;> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

983 in stock

Description

যে জন দিবসে মনের হরষে সারমর্ম । “যে জন দিবসে মনের হরষেজ্বালায় মোমের বাতি, আশু গৃহে তার দেখিবে না আর নিশীথে প্রদীপ ভাতি” – এই কবিতার সারমর্ম হলো অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসের পরিণতি বিপদজনক হতে পারে।

যে জন দিবসে মনের হরষে সারমর্ম

বিস্তারিত বিশ্লেষণ:

  • “যে জন দিবসে মনের হরষে জ্বালায় মোমের বাতি” – এই বাক্যটিতে বোঝানো হচ্ছে যে, যখন কেউ অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসে ভরে যায়, তখন সে যুক্তি হারিয়ে ফেলে এবং অবিবেচনাপ্রসূত কাজ করে।

পড়ুনঃ মোটা হওয়ার ইন্ডিয়ান গুড হেলথ কিনতে এখনই ক্লিক করুন

  • “আশু গৃহে তার দেখিবে না আর নিশীথে প্রদীপ ভাতি” – এই বাক্যটিতে বোঝানো হচ্ছে যে, অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসের ফলে বিপদ আসতে পারে এবং সেই ব্যক্তির জীবনের আলো নিভে যেতে পারে।

উপসংহার:

এই কবিতা আমাদের শিক্ষা দেয় যে, জীবনে সবসময় সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।

অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসের ফলে বিপদ আসতে পারে, তাই সবসময় ভারসাম্য রক্ষা করা উচিত।

কবিতার প্রাসঙ্গিকতা:

এই কবিতা আজও সমাজে প্রাসঙ্গিক। আমরা প্রায়শই দেখতে পাই যে, অনেকে অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসে ভরে গিয়ে ভুল সিদ্ধান্ত নেন। এর ফলে তাদের জীবনে বিপদ আসে। তাই এই কবিতা আমাদের সতর্ক করে যে, জীবনে সবসময় সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।

কিছু অতিরিক্ত দিক:

  • এই কবিতাটিতে মোমের বাতির ব্যবহার একটি প্রতীক হিসেবে করা হয়েছে। মোমের বাতি যেমন দ্রুত জ্বলে পুড়ে যায়, তেমনি অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসও আমাদের জীবনের আলো নিভিয়ে দিতে পারে।
  • এই কবিতাটি আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে, জীবন চলমান এক প্রক্রিয়া। আজকের আনন্দ কালকের দুঃখে পরিণত হতে পারে। তাই সবসময় সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।

আশা করি এই উত্তরটি আপনার প্রশ্নের সারমর্ম ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করেছে।

যে জন দিবসে মনের হরষে জ্বালায় মোমের বাতি

“যে জন দিবসে মনের হরষে জ্বালায় মোমের বাতি, আশু গৃহে তার দেখিবে না আর নিশীথে ভাতি” এই কবিতার সারমর্ম হল:

  • অস্থায়িত্ব: মোমের বাতি যেভাবে জ্বলে, তারপর নিভে যায়, ঠিক তেমনি মানুষের জীবনও অস্থায়ী। আজকের আনন্দ কাল হয়তো থাকবে না।
  • সুখের ক্ষণস্থায়িত্ব: জীবনে সুখের মুহূর্ত স্থায়ী হয় না। যেমন, মোমের বাতি জ্বলে আলো দেয়, কিন্তু এক সময় তা নিভে যায়।
  • আনন্দের অপব্যবহার: যদি আমরা আজকের আনন্দে মত্ত থাকি এবং ভবিষ্যৎ সম্পর্কে চিন্তা না করি, তাহলে আমরা দুঃখের সম্মুখীন হতে পারি।
  • সুযোগের সদ্ব্যবহার: জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে আমাদের সর্বোচ্চভাবে কাজে লাগানো উচিত। কারণ, আমরা জানি না কখন আমাদের জীবনের আলো নিভে যাবে।
  • কৃতজ্ঞতা: জীবনের সুখের জন্য কৃতজ্ঞ থাকা উচিত। কারণ, সুখের মুহূর্ত স্থায়ী হয় না।

উপসংহার: এই কবিতা আমাদের জীবনের অস্থায়িত্ব এবং সুখের ক্ষণস্থায়িত্ব সম্পর্কে স্মরণ করিয়ে দেয়। আমাদের উচিত জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে সর্বোচ্চভাবে কাজে লাগানো এবং সুখের জন্য কৃতজ্ঞ থাকা।

“যে জন দিবসে মনের হরষে জ্বালায় মোমের বাতি” কবিতার বিস্তারিত বিশ্লেষণ:

কবিতার ভাব:

“যে জন দিবসে মনের হরষে জ্বালায় মোমের বাতি” কবিতাটির মূল ভাব হল অতিরিক্ত আনন্দ বা

উচ্ছ্বাসের পরিণতি বিপদজনক হতে পারে। কবি এই ভাবকে দুটি চরণের মাধ্যমে তুলে ধরেছেন।

প্রথম চরণ:

“যে জন দিবসে মনের হরষে জ্বালায় মোমের বাতি”

এই চরণে বোঝানো হচ্ছে যে, যখন কোন ব্যক্তি অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসে ভরে যায়, তখন সে যুক্তি হারিয়ে ফেলে এবং অবিবেচনাপ্রসূত কাজ করে। মোমের বাতি দ্রুত জ্বলে পুড়ে যায়, যেমন অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসও একজন ব্যক্তির বিচারশক্তিকে দ্রুত ধ্বংস করে ফেলে।

দ্বিতীয় চরণ:

“আশু গৃহে তার দেখিবে না আর নিশীথে প্রদীপ ভাতি”

এই চরণে বোঝানো হচ্ছে যে, অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসের ফলে বিপদ আসতে পারে এবং সেই ব্যক্তির জীবনের আলো নিভে যেতে পারে। “আশু গৃহ” বলতে বোঝানো হচ্ছে ব্যক্তির জীবন। “নিশীথে প্রদীপ ভাতি” বলতে বোঝানো হচ্ছে জীবনের আলো। যখন কেউ অবিবেচনাপ্রসূত কাজ করে, তখন সে বিপদের মুখোমুখি হয় এবং তার জীবনের আলো নিভে যেতে পারে।

উদাহরণ:

  • একজন ছাত্র পরীক্ষায় ভালো ফলাফল পেয়ে অতিরিক্ত আনন্দে মেতে গেল এবং পরের দিন পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে ভুলে গেল। পরীক্ষায় সে খারাপ নম্বর পেল।
  • একজন ব্যবসায়ী নতুন একটি ব্যবসা শুরু করার জন্য ঋণ নিয়ে অতিরিক্ত খরচ করতে লাগল। পরে ব্যবসাটি লোকসানে গেল এবং ব্যবসায়ী ঋণে জর্জরিত হয়ে পড়ল।

বিবরণ:

  • এই কবিতাটি শুধুমাত্র ব্যক্তিগত জীবনের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য নয়, বরং সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবনের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।
  • ইতিহাসে অনেক ঘটনা ঘটেছে যেখানে অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসের ফলে বিপদ এসেছে।
  • এই কবিতাটি আমাদের শেখায় যে, জীবনে সবসময় সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত এবং অতিরিক্ত আনন্দ বা উচ্ছ্বাসে ভরে যাওয়া উচিত নয়।

উপসংহার:

“যে জন দিবসে মনের হরষে জ্বালায় মোমের বাতি” কবিতাটি একটি চিরন্তন শিক্ষা দেয়।

এই শিক্ষাটি আজও সমাজে প্রাসঙ্গিক এবং আমাদের সকলের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

পড়ুনঃ  ব্রা – প্যান্টি কিনতে এখনই ক্লিক করুন

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের যোনি টাইট করার ক্রিম কিনতে এখনই ক্লিক করুন

আরো পড়ুনঃ  ম দিয়ে ছেলেদের নাম / ম দিয়ে ছেলেদের  ইসলামিক নাম

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “যে জন দিবসে মনের হরষে সারমর্ম”

Your email address will not be published. Required fields are marked *